শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১, ০৪:২৬ পূর্বাহ্ন

বাউফলের সেই চেয়ারম্যানসহ পটু্য়াখালী জেলায় ১৯ জনের শপথ

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, ১৫ জুলাই, ২০২১
  • ৩৪৫ জন নিউজটি পড়েছেন

সালিশ বৈঠকে ডেকে নিয়ে কিশোরীকে বিয়ে করা আলোচিত সেই চেয়ারম্যান শাহীন হাওলাদারসহ পটুয়াখালীতে প্রথম দফায় নির্বাচিত ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যানদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) দুপুরে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে নবনির্বাচিত ১৯ চেয়ারম্যানকে শপথবাক্য পাঠ করান জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামাল হোসেন।

শপথবাক্য পাঠ শেষে জেলা প্রশাসক ইউপি চেয়ারম্যানদের উদ্দেশে বলেন, ‘নির্বাচনের সময় যারা আপনাদের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর পক্ষে ছিলেন তাদের সঙ্গে কোনও ধরনের অমানবিক আচরণ কারা যাবে না। ইউপি চেয়ারম্যানদের সরকারি বিধি-বিধান মেনে মানুষের কল্যাণে কাজ করতে হবে।’

পরে ১৯ জন ইউপি চেয়ারম্যানকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান জেলা প্রশাসক।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জিএম সরফরাজের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী আলমগীর, সাধারণ সম্পাদক ভিপি আবদুল মান্নান, গলাচিপা উপজেলার চেয়ারম্যান মো. শাহিন সাহা ও পটুয়াখালী প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদসহ জেলা প্রশাসনের অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

২১ জুন প্রথম ধাপে পটুয়াখালী জেলার চার উপজেলার ১৯ ইউনিয়নের ভোটে ১৬টিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত ও তিনটিতে বিদ্রোহী প্রার্থী বিজয়ী হয়।

শাহীন হাওলাদারের শপথ নেওয়া প্রসঙ্গে বাউফল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকির হোসেন বলেন, ‘যেহেতু তার সাময়িক বরখাস্তের আদেশ স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট, তাই এখন শপথ গ্রহণে আইনি নিষেধ আছে বলে আমার মনে হয় না।’

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামাল হোসেন বলেন, ‘বরখাস্তের আদেশ স্থগিত হওয়ায় শপথ গ্রহণ করেছেন।’ শপথ গ্রহণের পরে ভুক্তভোগী পরিবারগুলোর উপরে তার ক্ষমতার কোনও প্রভাব পড়বে কিনা এ বিষয় জানতে চাইলে তিনি জানান, ক্ষমতার অপব্যবহার করলে কোনও ছাড় দেওয়া হবে না।

উল্লেখ্য, সালিশ করতে গিয়ে ক্ষমতার অপব্যবহার করে অপ্রাপ্তবয়স্ক কিশোরীকে জোরপূর্বক বাল্যবিয়ের ঘটনায় পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার কনকদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শাহিন হাওলাদারকে গত ২৮ জুন সাময়িক বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। এ বিষয়ে আবেদনের শুনানি করে গত ৭ জুলাই বুধবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের বিশেষ হাইকোর্ট বেঞ্চ এক মাসের জন্য এই স্থগিতাদেশ দেন। আদালতে শাহীন হাওলাদারের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন এবং সাবেক আইনমন্ত্রী শফিক আহমেদ।

এদিকে, চেয়ারম্যান শাহীন হাওলাদারকে স্থায়ীভাবে বরখাস্ত করতে গত ৫ জুলাই লিগ্যাল নোটিশ দেন ওই ইউনিয়ন পরিষদের একজন সদস্য। ১৫ দিনের মধ্যে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে। যথাযথ জবাব না পেলে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে নোটিশে বলা হয়। এটি ইমেইল যোগে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ তিন জনকে পাঠানো হয়েছে।

ট্রিবিউন থেকে সংগ্রহীত

আমাদের বাউফল ডট কম পরিবারের পক্ষ থেকে সবাইকে জানাচ্ছি পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আর নিউজ
© All rights reserved © 2019 amaderbauphal.com
themesba-lates1749691102