মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৩:০০ পূর্বাহ্ন

পরিবার কল্যাণ সহকারীর বিরুদ্ধে জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতির অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, ১ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
  • ১৫১ জন নিউজটি পড়েছেন

পটুয়াখালীর বাউফলের কাছিপাড়া ইউনিয়নের ২ এর (ক) অংশে কর্মরত পরিবার কল্যাণ সহকারী সামিয়া এর বিরুদ্ধে একাধিক জাতীয় পরিচয়পত্র গ্রহণের অভিযোগ উঠেছে।

একাধিক বার ভোটার তালিকাভুক্ত হওয়ায় ভোটার আইন ,২০০৯ এর ১৮ ধারা এবং জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন আইন ২০১০ এর ধারা ১৫ এর আলোকে
বাউফল উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ তরিকুল ইসলাম, গত ১১ জানুয়ারি ২০২১ তারিখে বাউফল থানায় এজাহার দায়ের করেন, যার এজাহার নং ০৯।

নির্বাচন অফিসার তার এজাহারে উল্লেখ করেন পটুয়াখালী জেলার বাউফল উপজেলাধীন কাছিপাড়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের পাকডাল ভোটার এলাকায় মোসাঃ লাকী আক্তার, পিতা- মোঃ আলী আজিম হাওলাদার, মাতা- মোসাঃ শাহানারা বেগম, স্বামী: মোঃ হাবিবুর রহমান নামে ২০০৭ সালে ১ম বার ভোটার নিবন্ধিত হয় (আইডি নম্বর-১৯৮৭৭৮১৩৮৪৭৮০৭৯৭৫) ।

পরবর্তীতে তিনি সকল তথ্য গোপন করে জাল জালিয়াতি, প্রতারনা ও মিথ্যা ঘোষণা দিয়ে বিগত ২০-০৮-২০১৭ তারিখ সকাল ৯.০০ ঘটিকা থেকে বিকাল ৪.০০ ঘটিকায় মধ্যে যে কোন সময় কাছিপাড়া ইউনিয়নের ভোটার নিবন্ধন কেন্দ্রে (কাছিপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় ) ২য় বার বিভিন্ন তথ্য পরিবর্তন করে একই ভোটার এলাকায় ২য় বার (আইডি নং ১৯৯৭৭৮১৩৮৪৭০০০৩৭৮) ভোটার নিবন্ধিত হয়েছন ( কপি এজাহারে সাথে থানায় সংযুক্ত আছে) ।

নির্বাচন কমিশন কর্তৃক Finger Print Cross Macth যাচাইয়ে মোসাঃ লাকী আক্তার/ সামিয়া দ্বৈত ভোটার হিসেবে শনাক্ত হয় । এ বিষয়ে সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা, পটুয়াখালী এর ১৯-০৬-২০২১ তারিখের ১৭.০৬.৭৮০০.০০০.৫৩.০২.১৮.২৪৭ নং স্মারকের মাধ্যমে তদন্ত প্রতিবেদন নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে প্রেরন করা হয় উক্ত তদন্ত প্রতিবেদনে বিবাদী মোসাঃ লাকী আক্তার/ সামিয়া নিজের অপরাধ স্বীকার করেছেন, উক্ত তদন্ত প্রতিবেদনের আলোকে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখে ১৭.০০.০০০০.০৭৬.২৭.০২.২১.১৪৪ নং পত্রের মাধ্যমে বিবাদীর বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনায় উল্লেখিত ব্যাক্তির বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা দায়ের করেছেন বাউফল উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ তরিকুল ইসলাম।

সরোজমিনে গিয়ে খোঁজ নিলে কাছিপাড়া পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক মো. সাইফুদ্দিন আহম্মেদ বলেন, ‘লাকি এখানে সামিয়া নামে চাকরি করতেন। তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয়ভাবে মামলা হয়েছে। তাই তিনি বর্তমানে কর্মস্থলে অনুপস্থিত আছেন।’

বাউফল উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জাকির হোসেন বলেন, ‘বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করা হয়েছে। তারা যেভাবে নির্দেশনা দেবেন সেভাবেই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এ বিষয়ে পটুয়াখালী জেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা দপ্তরের উপপরিচালক ডা. জসিম উদ্দিন মুকুল বলেন, ‘জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতি করে ওই নারীর বিরুদ্ধে চাকরি নেওয়ার অভিযোগ পেয়েছি। এর ভিত্তিতে তাকে নোটিশও দেওয়া হয়েছে। তাতে সন্তোষজনক জবাব না দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অভিযুক্ত লাকি আক্তার/ সামিয়া কে প্রতিবেদন কারী একাধিক বার ফোন করার পরেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি

এ ব্যাপারে বাউফল থানার ওসি মোঃ আল- মানুষ প্রতিবেদক কে জানান অভিযোগ ভিত্তিতে তদন্ত সাপেক্ষে অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

আমাদের বাউফল ডট কম পরিবারের পক্ষ থেকে সবাইকে জানাচ্ছি পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আর নিউজ
© All rights reserved © 2019 amaderbauphal.com
Design By MrHostBD
themesba-lates1749691102