মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৩:৫১ পূর্বাহ্ন

বাউফলে সেবার আশায় থানায় ঘোড়া

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশিতঃ শনিবার, ৫ মার্চ, ২০২২
  • ১২০ জন নিউজটি পড়েছেন

একটি ঘোড়া দুর্ঘটনায় আহত হয়ে তার পিছনের বাম পায়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। অনবরত রক্তক্ষরণ হওয়ায় চিকিৎসা সেবা পাওয়ার আশায় থানায় গিয়ে ডিউটি কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে হাজির হয়। এরপর ডিউটিরত কর্মকর্তা থানার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে অবহিত করে চিকিৎসককে খবর দেন। চিকিৎসা সেবা পেয়ে ঘোড়াটি আবার আপন মনে ফিরে যায়। একটি প্রাণী চিকিৎসা সেবা নিতে থানায় হাজির হওয়ার এমন আশ্চর্য্য ঘটনা পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলায়।

বাউফল থানার ওসি আল মামুন বলেন, ঘোড়া আহত হয়ে থানায় এসেছে চিকিৎসা সেবা নিতে, যা আমাদের পুলিশ সদস্যদের মুগ্ধ করেছে। এমন ঘটনা আমার কাছে বিরল মনে হয়েছে। ঘোড়াটি যথাযথ সেবা দিতে পেরে আমাদের কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যরা মানবিক দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

থানা সূত্রে, জানা গেছে, দুপুর সোয়া একটার দিকে একটি উদ্বাস্ত ঘোড়া থানার মূল গেট দিয়ে প্রবেশ করে। পাঁচটি ধাপের সিড়ি বেয়ে মূল ভবনের ভিতরে ঢোকার সময় সামনে কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যরা ঘোড়াটিকে বাঁধা দেয়। এক পর্যায়ে বাঁধা উপেক্ষা করে ডিউটি অফিসারের কক্ষের সামনে এসে দাঁড়ায় ঘোড়াটি। কর্তব্যরত অফিসার সহ অন্যান্য পুলিশ সদস্যরা একাধিকবার তাড়ানোর চেষ্টা করলেও ঘোড়াটি ডিউটি অফিসারের মূল ফটকের কাছ থেকে সরাতে ব্যর্থ হন।

থানার ডিউটি অফিসার উপ পুলিশ পরিদর্শক আশিকুর রহমান বলেন, ঘোড়াটি তাড়ানোর চেষ্টা করেও যখন সরছে না, তখন লক্ষ্য করলাম ঘোড়ার পিছনের বাম পা দিয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে। আহত কোন মানুষ থানায় আসলে উর্দ্বতন কর্মকতাকে জানাতে হয়। সে অনুযায়ী জরুরী অফিসার হিসাবে দায়িত্বরত উপ পলিশ পরিদর্শক মো. আব্দুস সবুরকে জানালে তিনি থানার ওসি (তদন্ত) মিজানুর রহমান স্যারকে অবহিত করেন। এরপর মিজানুর রহমান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আল মামুন স্যারকে জানালে স্যার ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ঘোড়াটির প্রয়োজনীয় চিকিৎসার নির্দেশ দেন। জরুরী বিভাগে দায়িত্বরত মো. আব্দুস সবুর বলেন, ওসি স্যারের নির্দেশ পেয়ে বাউফল উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিসের চিকিৎসককে থানায় নিয়ে আসি।

চিকিৎসক আ. আজিজ বলেন, দুপুর ২টার দিকে থানায় এসে তিনি ঘোড়াটিকে ডিউটি কর্মকর্তার অফিস কক্ষের সামনে যখন দেখতে পান, তখন তার বাম পা দিয়ে রক্ত ঝরছিল । ক্ষত দেখে মনে হয়েছে ধারালো কোন কিছুর আঘাত লেগেছে যার কারণে পায়ের চামড়া উঠে মাংস ক্ষত হয়েছে। এরপর ঘোড়াটির ক্ষতস্থান ড্রেসিং করে ব্যাথা নাশক ইনজেকশন সহ বিভিন্ন ওষুধ লাগিয়ে দিলে কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে সুস্থ্য মনে করলে নিজ মনেই বেড়িয়ে যায়। ড্রেসিংয়ের সময় কোন মানুষও এভাবে হয়তো স্থীর হয়ে থাকতে পারতো না !

আমাদের বাউফল ডট কম পরিবারের পক্ষ থেকে সবাইকে জানাচ্ছি পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আর নিউজ
© All rights reserved © 2019 amaderbauphal.com
Design By MrHostBD
themesba-lates1749691102