বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৩৪ অপরাহ্ন
প্রধান সংবাদ :
বাউফলে গাঁজাসহ এক মাদক কারবারি আটক দুই লঞ্চের বেপরোয়া প্রতিযোগিতায় অকালে প্রান দিতে হলো শিশু মার্জিয়ার। বাউফলে আবাসিক হোটেলে অভিযান, আপত্তিকর অবস্থায় যুবক-যুবতী আটক বাউফলে ইউপি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে গুলি, ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ বাউফলে বৃদ্ধ স্বামী ও স্ত্রীকে গাছের সাথে বেধে বসতঘরে হামলা, ভাংচুর বাউফলে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পোস্টার ঝোলানোয় বাধা, ১০ কর্মীকে কুপিয়ে জখম বাউফলে দুর্ধর্ষ চুরি! খাট, ফ্রিজ, টিভি উধাও বাউফলে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে স্বতন্ত্র প্রার্থী সহ দু’পক্ষের আহত ২০ প্রতিবন্ধী ইয়ামিনের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন হাসীব তালুকদার বাউফলে সড়ক দুর্ঘটনায় চালকের মৃত্যু

দুই লঞ্চের বেপরোয়া প্রতিযোগিতায় অকালে প্রান দিতে হলো শিশু মার্জিয়ার।

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশিতঃ শনিবার, ৩০ জুলাই, ২০২২
  • ১৩৬ জন নিউজটি পড়েছেন

স্বপ্ন ছিলো মেয়ে বড় হয়ে ডাঃ হবে, মেয়ে ডাঃ হলে পরিবারের অভাব অনটন কেটে যাবে। আর এতেই হয়তো শুখে থাকতে পারবেন তারা। এমনটাই চিন্তা করেছিলেন বাউফলের কেশাবপুরের গার্মেন্টস কর্মী মেহেদী হাসান।।

তবে তার সেই স্বপ্ন- স্বপ্নই রয়ে গেলো।

গত ১৭ জুলাই বাউফলের ধূঁলিয়া ঘাটে প্রতিযোগিতা করে পল্টুনে ঘাট দিতে গিয়ে সজোরে পল্টুনে আঘাত করে কালাইয়া-ঢাকা রুটের ‘এমভি ধূলিয়া’ ও ‘বন্ধন’ লঞ্চ।

এতে পল্টুনে থাকা ১৫/২০ জন যাত্রী গুরুতর আহত হয়।। আহত অবস্থায় সবাইকে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হয় ।

তাদের মধ্যে ২ বছরের শিশু মার্জিয়ার অবস্থা সংকটাপন্ন হলে মার্জিয়াকে ঐদিনই বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়। কিন্তু শারিরীক অবস্থা অনেক বেশি খারাপ থাকায় বরিশাল থেকে পাঠানো হয় ঢাকা হাসপাতালে।

সেখানে এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে দৌড়া-দৌড়ি করে অবশেষে গতকাল রাত ১০ ঘটিকার দিকে ঢাকা শিশু হাসপাতালে চিকিৎসাদিন অবস্থায় এই পৃথীবির মায়া ত্যাগ করে চলে যান মার্জিয়া। রাতে কেশাবপুরে মার্জিয়ার ধাফন সম্পূর্ন হওয়ার কথা রয়েছে।।

এ ঘটনায় মার্জিয়ার দাদা আশ্রাফ আলী গাজী বাদী হয়ে অভিযুক্ত দুই লঞ্চের বিরুদ্ধে বাউফল থানায় মামলা করলেও তাদের বিরুদ্ধে নেওয়া হচ্ছেনা কোনো পদক্ষেপ।

একমাত্র শিশু মেয়েকে হারিয়ে অনেকটা পাগলের মত হয়ে গিয়েছেন মার্জিয়ার বাবা।।

মার্জিয়ার বাবা অনেকটা অসহায়পন্ন ভাবেই  বলেন ” দুই লঞ্চের প্রতিযোগিতার কারনে আমার মেয়েডা দূনিয়া থেকে চলে গেলো।
আমার মেয়েও শেষ আমার অর্থ সম্পদ যা ছিলো তাও এই মেয়ের পিছঁনে শেষ। আমি নিঃস্ব হয়ে গেলাম”
চিকিৎসার জন্য লঞ্চ কর্তৃপক্ষ কোনো সহযোগিতা করেছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে মেহেদী হাসান বলেন “ধুলিয়া লঞ্চের মালিক পক্ষ আমাদেরকে প্রথমে ভর্তি করানোর সময় কিছু টাকা দিয়েছিলো, পরে আর খোজঁ নেইনি। এনারা ব্যতীত আর কেউ আমার বা আমার মেয়ের কোনো খোজঁ খবর নেয়নি, হয়তো ভালো চিকিৎসা করাইতে পারলে আমার মেয়েটা বাইচ্চা থাকতো। আমি আমার মেয়ের হত্যাকারীদের অতি দ্রুত আইনের আওতায় আনার জোর দাবী জানাই।

এ বিষয়ে জানতে বাউফল থানার ওসি আল মামুনকে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

আমাদের বাউফল ডট কম পরিবারের পক্ষ থেকে সবাইকে জানাচ্ছি পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আর নিউজ
© All rights reserved © 2019 amaderbauphal.com
Design By MrHostBD
themesba-lates1749691102